বিবিধ
ভর্তি বিজ্ঞপ্তি (2020)
লিখেছেন -
একটি মৃত্যু সংবাদ
লিখেছেন - ABU TALIB-01726942851
দাওয়াত ও তাবলীগী মহা সম্মেলন-২০১৯,
লিখেছেন - ABU TALIB-01726942851
দাওয়াহ ও তাবলীগী মহা সম্মেলন-২০১৯”
লিখেছেন -
"শাইখ শাহাদাৎ হুসাইন খান ফয়সাল"
লিখেছেন - ABU TALIB-01726942851
মাদরাসাতুল হাদীস (নাজির বাজার)- এর আকুল আবেদন
লিখেছেন - ABU TALIB
ইসলামী সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা-২০১৮ইং,
লিখেছেন - ABU TALIB
মসজিদের জন্য মুক্ত হস্তে দান করুন
লিখেছেন -
"ইসরা ও মি‘রাজ প্রসঙ্গ"
লিখেছেন - Abu Talib
একটি শোক সংবাদ !
লিখেছেন - আবু তালিব- শিক্ষক, মাদরাসাতুল হাদীস

মাদরাসাতুল হাদীসের প্রতিষ্ াতা

আল্লামা মোহাম্মদ আব্দুল্লাহেল কাফী আল কোরায়শী (রহ:)

পৃথিবীতে বিভিন্ন যুগে বিভিন্ন প্রান্তে যে সব ক্ষনজম্মা  মহাপুরুষ মাজলুম, দিশেহারা মানুষকে তাওহীদ ও রেসালাতের সুবিমল জ্যোতির দিশা দিয়েছিলেন, অসাধারণ পান্ডিত্য ও দক্ষতার মাধ্যমে যিনি ঘুনে ধরা সমাজকে সফলতার এক অনন্য পথের সন্ধান দিয়েছিলেন, তিনিই আল্লামা মোহাম্মদ আব্দুল্লাহেল কাফী আল-কোরায়শী (রহ:)। তিনি ভারতীয় উপমহাদেশে নিপীড়িত মুসলিম সমাজের এক দু:সাহসী রাহবার ছিলেন।

জন্ম, বংশ পরিচয় ও শিক্ষা জীবন : বিংশ শতাব্দীর ঊষালগ্নে এ মহান ব্যক্তিত্বের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম। তাঁর বাবার নাম মাওলানা আব্দুল হাদী। যিনি তৎকালীন চাটগাঁ থেকে হিজরত করে দিনাজপুরের নূরুল হুদা গ্রামে বসতি স্থাপন করেছিলেন। আল্লামা আব্দুল্লাহেল কাফী আল কুরায়শী (রহ:) বাবার কাছে জ্ঞান সাধনার হাতেখড়ি পান। তাঁর কাছেই তিনি জ্ঞানের মূল উৎস আল-কুরআন, আরবী ও ফারসী ভাষা শিক্ষা লাভ করেন। পরবর্তীতে জৈষ্ ভ্রাতা আল্লামা আব্দুল্লাহিল বাকীর (রহ:) হাতে বাল্যশিক্ষা সমাপ্ত করেন। অত:পর কলিকাতা আলিয়া মাদরাসায় ভর্তি হয়ে ১৯১৪ সালে এ্যাংলো পার্সিয়ান বিভাগ হতে ফাইনাল মাদরাসা পরীক্ষায় কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হন। এরপর কোলকাতার সেন্ট জেভিয়ার্ম কলেজে ভর্তি হন। এসময় খেলাফত ও অসহযোগ আন্দোলনের প্রভাবে ইংরেজ উপনিবেশিক সরকার প্রবর্তিত শিক্ষা ব্যবস্থা বর্জন করে স্বাধিকার আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়েন। আল্লামা কাফীর (রহ:) একাডেমিক শিক্ষার এখানেই পরিসমাপ্তি ঘটে। তবে এই জ্ঞান সাধকের জ্ঞান সাধনা পরে আরো বি¯তৃত হয়। এভাবেই স্বীয় সাধনায় তিনি উলুমুশ শারীয়ার পাশাপাশি আধুনিক পাশ্চাত্য শিক্ষাও অর্জন করেন।

আল্লামা কাফীর (রহ:) কর্মময় জীবন : ইতিহাসের এই খ্যাতিমান ব্যক্তিত্ব ছাত্রাবস্থায় সাহিত্য চর্চায় ব্যাপৃত হন। ১৯১৬ সালে কোলকাতার তৎকালীন আল-ইসলাম পত্রিকায় তাঁর প্রথম লেখা প্রকাশিত হয়। পরে তিনি মুসলিম সাংবাদিকতার জনক মাওলানা আকরাম খাঁ সম্পাদিত উর্দু দৈনিক পত্রিকা “যামানা”র সহকারী সম্পাদক হিসেবে কর্মজীবনের সূচনা করেন। মাওলানা আকরাম খার কারাভোগকালে তিনি স্বীয় যোগ্যতা ও দক্ষতার সাথে উক্ত পত্রিকায় সম্পাদনার গুরুত্বপুর্ণ কাজ সফলতার সাথে আঞ্জাম দেন। ১৯২৪ সালে তিনি স্বীয় প্রচেষ্টায় কোলকাতায় “সত্যাগ্রহী” নামে মানসম্মত এক বাংলা সাপ্তাহিক প্রকাশ করেন। পরবর্তীতে এই অসাধারণ ব্যক্তিত্ব জমঈয়তে উলামা-ই-বাংলা নামক সংগ নের সাথে সম্পৃক্ত হন। পরে ১৯২২ সালে উক্ত সংগ নের সহ-সম্পাদক নিযুক্ত হন। ১৯২৬ সালে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর সহকারী রূপে ইন্ডিপেনডেন্ট মুসলিম পার্টির রাজনীতিতে আত্মনিয়োগ করেন। এসময় তিনি বৃটিশ উপনিবেশবাদের বিরুদ্ধে আপোষহীন সংগ্রাম পরিচালনা করেন। এক সময় তিনি বন্দি হয়ে ফিরিঙ্গি মহলের কয়েদ খানায় বন্দি জীবন যাপন করেন। তৎকালীন সময়ে কংগ্রেস আইন অমান্য আন্দোলনে যোগদান করে ১৯৩১-৩২ খৃ: রাজদ্রোহিতা মূলক ভাষণ দানের অভিযোগে দু-দুবার কারাবরণ করেন। পরবর্তীতে রাজনীতির ময়দান পংকিলতাযুক্ত হওয়য় সক্রিয় রাজনীতি থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন।

মুজতাহিদ ও মুজাহিদ আল্ল¬ামা কাফী (রহ:) : রাজনীতি থেকে নিজেকে গুটিয়ে আল্ল¬ামা কাফী (রহ:)  ইসলামী জ্ঞান গবেষণা ও সমাজ উন্নয়নে ব্রতী হন। কিতাব ও সুন্নাতের খেদমতে নিজেকে পূর্নরুপে উৎসর্গ করেন। এ সময় তিনি একাধারে লেখনী, সংগ ন, দাওয়াত-তাবলীগ ও তারবিয়াতের মহান উদ্দেশ্যে পবিত্র মিশন পরিচালনার সিপাহসালার হিসাবে আবির্ভূত হন। 

১৯২৯ হতে ১৯৪৬ পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে অনুষ্ িত ঐতিহাসিক আহলে হাদীস কনফারেন্সে সভাপতিত্ব করেন। ১৯৪৬ সালে হারাগাছের ঐতিহাসিক কনফারেন্সে তিনি নিখিল ও আসাম জমঈয়তে আহলে হাদীসের সভাপতি নির্বাচিত হন। অত:পর আমৃত্যু তিনি জমঈয়তে আহলে হাদীসের সভাপতির পদ অলংকৃত রাখেন। ১৯৪৯ খ্রীস্টাব্দে তাঁর প্রচেষ্টায় আল হাদীস প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং হাউজের তত্বাবধানে মাসিক “তর্জুমানুল হাদীস” প্রকাশিত হয়। পরবর্তীতে ১৯৫৭ সালে মুসলিম সংহতির দৃপ্ত নকীব হিসাবে তিনি “সাপ্তাহিক আরাফাত” প্রকাশ করেন। অদ্যাবধি তা জমঈয়তের মুখপত্র হিসাবে কিতাব ও সুন্নাতের নিখাদ বার্তা প্রচার করছে। আল্ল¬ামা কাফী (রহ) তাঁর অবিস্মরনীয় কীর্তিসমূহের এক অন্যতম নিদর্শন ১৯৫৯ সালে মাদরাসাতুল হাদীস প্রতিষ্ া করেন।

সত্যি কথা বলতে কি! একজন ক্ষনজন্মা মহা পুরুষের সোনালী জীবন এত অল্প কথায় লিখা ধূষ্টতা বৈকি। 

রচনা : আল্লামা কাফী (রহ) শতাধিক পুস্তক রচনা করেন। এ সংক্ষিপ্ত রচনায় তা উল্লেখ অসাধ্য। 

এককথায়, আল্লামা আব্দুল¬াহিল কাফী আল কোরাইশী (রহ) ছিলেন একাধারে দক্ষ জ্ঞান সাধক, ভাষাবিদ, সাহিত্যিক, অসাধারণ লেখক, মুজতাহিদ ও মুজাহিদ, দক্ষ সংগ ক এবং সর্বোপরি বিংশ শতাব্দির এক শ্রেষ্ দাঈ ইলাল্ল¬াহ।

ওফাত : এই মহা-মনীষি ১৯৬০ সালের ৪ া জুন ঢাকা জমঈয়ত অফিসে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। আল¬াহ তাঁকে জান্নাতুল ফেরদাউস দান করুন। আমিন! ছুম্মা আমিন!!



© Copyright, 2021. Powered by UNIQUE TECHNOLOGY